রবিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
বিশেষ নিউজ

বিচার বিভাগীয় হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে জানেন না প্রধান বিচারপতি


NEWSWORLDBD.COM - June 20, 2016

10041বিচার বিভাগীয় হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে আমি অফিসিয়ালি কোনো কিছু জানি না। সোমবার আকস্মিক ঢাকার নিম্ন আদালত পরিদর্শনে গিয়ে ঢাকা আইনজীবী সমিতির হলরুমে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা।

তিনি বলেন, পত্রিকা বা মিডিয়ার খবর দেখে আমরা বিচার করি না। যদি কোনো বিষয়ে জানতে পারি তাহলে অবশ্যই সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে অপরাধীদের কোনোক্রমেই ছাড় দেয়া হবে না।

তিনি বলেন, ঢাকা কোর্টে চুল পরিমাণ দুর্নীতিকেও আশ্রয় দেয়া হবে না। এখানে আইনের শাসন যেন প্রতিষ্ঠা হয় সেজন্য আমি সব থেকে ভালো মেধাবী বিচারকদের নিয়োগ দিয়েছি। ঢাকা কোর্ট হবে অন্যান্য জেলার কোর্টের জন্য মডেল।

সোমবার বিকেলে ঢাকা আইনজীবী সমিতির কনফারেন্স রুমে আইনজীবীদের সঙ্গে এক আলোচনা সভায় প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘নিম্ন আদালতে সারপ্রাইজিং ভিজিটে এসে আমি প্রথমে ঢাকার সিএমএম আদালতের হাজতখানা পরিদর্শন করি। সেখানে দেখি মায়ের সাথে সন্তানরাও আছে। বিষয়টি আমাকে মর্মাহত করেছে।’ বিষয়টি সহানুভুতির সঙ্গে দেখতে সংশ্লিষ্ট বিচারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

এসকে সিনহা বলেন, ‘মায়ের সাথে হাজতে থাকা এ শিশু একদিন রাষ্ট্রপতি বা প্রধান বিচারপতি হতে পারে। এমনকি প্রধানমন্ত্রীও হবে কেউ কেউ। মা হয়তো অপরাধ করেছে। কিন্তু শিশুগুলোর কী দোষ? অথচ তারা মায়ের সাথে হাজত খাটছে। যা খুবই দুঃখজনক।’

তিনি বলেন, ‘বিচার বিভাগের প্রতি এখন মানুষের আস্থা অনেক বেড়েছে। বিচারপ্রার্থীদের এখন বলতে শোনা যায়, রায় যা-ই হোক বিচার হয়েছে। মামলার উভয় পক্ষ ন্যায়বিচার চায়। সাক্ষীর অভাবে বছরের পর বছর মামলার বিচার ঝুলে থাকে। এতে আসামিরা ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। দীর্ঘদিন সাক্ষী না আসলে আইন অনুযায়ী মামলার বিচার শেষ হবে।’

বিচার বিভাগীয় হত্যাকাণ্ড এবং রিমান্ডে থাকা আসামিকে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হলো- আপনার প্রতিক্রিয়া কী? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমি এখনো কোনো রেকর্ড পাইনি। রেকর্ড ছাড়া বিষয়টি সম্বন্ধে কিছু বলব না। আমার কাছে এরকম অভিযোগ এলে অপরাধী যত বড়ই হোক, তার বিচার নিশ্চিত করব।’

আলোচনা সভার সভার পর প্রধান বিচারপতি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের জগন্নাথ-সোহেল মিলনায়তনে নিম্ন আদালতে বিচারকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

এর আগে সোমবার সকাল ৯টার দিকে তিনি ঢাকা সিএমএম আদালত প্রাঙ্গনে উপস্থিত হন। এ সময় তার সঙ্গে হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ, রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম এবং প্রধান বিচাপতির ব্যক্তিগত কর্মকর্তা যুগ্ম-জেলা জজ আনিসুর রহমান ছিলেন।

প্রধান বিচারপতি ব্যক্তিগত কর্মকর্তাকে সঙ্গে নিয়ে এবং বিচারপতি ও রেজিস্ট্রার জেনারেল পৃথকভাবে ঢাকার নিম্ন আদালতের সিএমএম, সিজেএম, মহানগর দায়রা জজ, জেলা ও দায়রা জজ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালসহ বিভিন্ন আদালতের বিচারকার্য পর্যবেক্ষণ করেন। তাদের পর্যবেক্ষণের মধ্যে ছিল- সংশ্লিষ্ট আদালতের বিচারকের উপস্থিতিতে তার পাশে বসে বিচারকার্য পর্যবেক্ষণ করা এবং বিচারকের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতিতে তার খাসকামরায় বসে কেস লিস্ট এবং বিভিন্ন মামলার আদেশ পর্যলোচনা করা।

প্রধান বিচারপতি সকালে প্রথমে বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ ও রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলামকে নিয়ে সিএমএম আদালতের হাজতখানা পরিদর্শনে যান। সেখানে তিনি হাজতখানার কয়েকটি কক্ষ ঘুরে দেখেন। একটি হাজতখানায় থাকা তিন দুগ্ধপোষ্য শিশুসহ নারী হাজতিকে তাদের মামলা সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। সেখান থেকে চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) শেখ হাফিজুর রহমানের আদালতে যান। তখন বিচারকাজ শুরু না হওয়ায় তিনি সিএমএমের খাসকামরায় কিছু সময় বসেন। এরপর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সিজেএম) আদালতের বিচারক জেমিন আরা বেগমের খাসকামরায় গিয়ে কিছু নথি পর্যবেক্ষণের পর সকাল সোয়া ১০টার দিকে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে যান।

এদিন মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লা ছুটিতে থাকায় ভারপ্রাপ্ত বিচারক হিসেবে অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মো. রুহুল আমিন বিচারকাজ পরিচালনা করছিলেন। ওই সময় প্রধান বিচারপতি তার পাশে বসে জামিন আবেদনের শুনানি পর্যবেক্ষণ করেন। প্রায় ৩০ মিনিট বিচারকার্য পর্যবেক্ষেণের পর তিনি মহানগর দায়রা জজের খাসকামরায় বসে জামিন হওয়া বিভিন্ন মামলার নথি পর্যালোচনা করেন। একইভাবে এরপর তিনি ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ এস এম জিয়াউর রহমানের এজলাসে বসে বিচারকার্য পর্যবেক্ষণের পর তার খাসকামরায় বসে বিভিন্ন মামলার নথি পর্যালোচনা করেন।

এরপর একইভাবে ঢাকার ২ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক সফিউল আজম, প্রথম যুগ্ম জেলা জজ সাহাদাৎ হোসেন এবং সর্বশেষ জেলা ও দায়রা জজ এস এম কুদ্দুস জামানের এজলাসে এবং তাদের খাসকামরায় বসে বিচারকার্য পর্যবেক্ষণ এবং নথি পর্যালোচনা করেন।

পরে বেলা পৌনে ৩টার দিকে তিনি ঢাকা আইনজীবী সমিতিতে বসে আইনজীবী নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Editor & Publisher: M. Arman Hossain

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
News & Editorial: 39 Mymensingh Lane, Banglamotor
Dhaka-1205, Bangladesh.