শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮
বিশেষ নিউজ

সরকারের কৌশলে চাপে পড়লেও সংঘাতে জড়াবে না বিএনপি


NEWSWORLDBD.COM - July 22, 2016

BNP Flagঅর্থপাচার মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাজা হওয়াসহ বিভিন্ন ইস্যুতে আবারও নানামুখী চাপে পড়তে যাচ্ছে দলটি। কিন্তু তা সত্ত্বেও এখনই সরকারের সঙ্গে সংঘাতে জড়াতে রাজি নয় বিএনপি।

কারণ কঠোর কর্মসূচি নিয়ে সংঘাতে জড়ালে সরকার আবারও হামলা-মামলা দিয়ে বিএনপিকে ঘায়েল করার সুযোগ পাবে বলে মনে করেন দলটির নীতিনির্ধারকরা। তাঁদের মতে, নেতাকর্মীদের আত্মগোপনে যেতে হয় এমন পরিস্থিতি আপাতত আর সৃষ্টি না করাই ভালো। জাতীয় কাউন্সিল শেষ হওয়ার পর এখনো দল গোছানো পুরোপুরি সম্ভব হয়নি। এ ছাড়া দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জাতীয় ঐক্যের প্রস্তাবটিও এখনো সামনে আছে। ফলে দল গোছানো এবং জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার ওপরই আপাতত বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে বিএনপি। এ দুটি ইস্যুর বাইরে দলটি আপাতত বড় ধরনের আন্দোলনে যাবে না। বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে এমন আভাস পাওয়া গেছে।

দলের দায়িত্বশীল ওই নেতারা বলছেন, সরকারের ‘উসকানি’তে বিএনপি পা দেবে না। তবে তারেক রহমানের সাজা হওয়ার প্রতিক্রিয়া হিসেবে ছোটখাটো কর্মসূচি দেওয়া হতে পারে।

অর্থপাচারের একটি মামলায় বৃহস্পতিবার তারেক রহমানকে সাত  বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে তাঁকে ২০ কোটি টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। কিছুদিন পর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টসংক্রান্ত দুর্নীতি মামলায় দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ারও সাজা হতে পারে বলে ধরে নিয়েছেন বিএনপি নেতারা। পাশাপাশি বেশকিছু মামলায় দলের সিনিয়র অনেক নেতারও সাজা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর বাইরে গুলশান থেকে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয় সরানোর নোটিশও শিগগিরই দেওয়া হবে বলে মনে করছেন বিএনপির সব পর্যায়ের নেতারা। চন্দ্রিমা উদ্যান থেকে জিয়াউর রহমানের কবর সরিয়ে দেওয়ার চিন্তাও সরকারের রয়েছে। সব মিলিয়ে দলটি মনে করছে, এসবই বিএনপিকে চাপে বা ব্যতিব্যস্ত রাখার কৌশল। উদ্দেশ্য হলো বিএনপি যাতে মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে। কিন্তু এসব ইস্যুতে বিএনপির এখনই কঠিন আন্দোলনে যাওয়ার সম্ভাবনা কম বলে বলে মনে করছেন দলটির নেতারা।

বিএনপির কয়েকজন নেতা জানান, তারেক রহমানের সাজা হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্রদল ও যুবদলসহ অঙ্গসংগঠনের পক্ষ থেকে বিচ্ছিন্নভাবে কিছু কর্মসূচি দেওয়া হতে পারে। তবে কেন্দ্রীয়ভাবে বিএনপির পক্ষে এমন কোনো কর্মসূচিতে যাওয়ার সম্ভাবনা কম, যাতে সংঘাত সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘হাইকোর্টের সাজা নিয়ে আমার কোনো প্রতিক্রিয়া নেই। তবে দৃশ্যমান রাজনৈতিক যেসব ঘটনা তাতে মনে হয়, সরকার আমাদের সব সময় চাপের মধ্যে রাখতে চায়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে সরকারের উসকানিও দৃশ্যমান। তবুও আমরা সবদিক দেখেশুনে অগ্রসর হতে চাই।’

দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘সরকার সুকৌশলে বিএনপিকে সংঘাতের দিকে নিয়ে যেতে চাইছে। কিন্তু আমরা কাউন্সিলের পর দল গোছানোর কর্মসূচিতে আছি। পাশাপাশি জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনাও জরুরি।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘মামলায় সাজা হওয়ার ইস্যু নিয়ে চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলাপ হবে। দেখা যাক কী হয়। তবে কাউন্সিলের পর দল গোছানো এবং জাতীয় ঐক্যের মতো ইস্যু সামনে আছে। সব কিছু বিবেচনায় রেখেই বিএনপিকে সামনের দিকে অগ্রসর হতে হবে।’

গত বছর পর্যন্ত সারা দেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মোট মামলা হয়েছে ২১ হাজার ৬৮০টি। এরপর আরো মামলা হয়েছে, যার পরিসংখ্যান এ মুহূর্তে বিএনপির হাতে নেই। দলীয় প্রধান খালেদা জিয়াসহ কেন্দ্রীয় ১৫৮ জন নেতার বিরুদ্ধেই মামলার সংখ্যা চার হাজার ৩৩১। কেন্দ্রীয় অনেক নেতার বিরুদ্ধে একাধিক মামলায় এরই মধ্যে চার্জশিটও হয়েছে। দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের মতে, এ অবস্থায় নতুন করে মামলা ও গ্রেপ্তারের কবলে পড়ে শক্তি ক্ষয় করতে রাজি নয় বিএনপি।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Editor & Publisher: Anwarul Karim Raju

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
News & Editorial: 39 Mymensingh Lane, Banglamotor
Dhaka-1205, Bangladesh.