রবিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » কূটনীতি » ত্রিপুরার জন্য জাহাজে বাংলাদেশে এসেছে চাল: ট্রাকে ঢুকবে আগরতলায়
বিশেষ নিউজ

ত্রিপুরার জন্য জাহাজে বাংলাদেশে এসেছে চাল: ট্রাকে ঢুকবে আগরতলায়


NEWSWORLDBD.COM - August 24, 2016

Dhaka-Photo-Ashuganj-Port-Rice-24-08-16bজ্বালানি তেল পরিবহনের চুক্তির পরপরই আগের সমঝোতা অনুযায়ী ত্রিপুরার জন্য বাংলাদেশ হয়ে যাচ্ছে চাল।

কলকাতা থেকে ২ হাজার ২৭২ টন চাল নিয়ে আশুগঞ্জে আসা ভারতীয় জাহাজ এমভি অভি থেকে আসা ত্রিপুরার রেশন ও গণবণ্টনের চাল বৃহস্পতিবার আগরতলায় আসবে। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ওইসব চাল কভার্ডভ্যানে লোড করা শুরু হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চালবোঝাই ভারতীয় জাহাজ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ আন্তর্জাতিক নৌবন্দরে নোঙ্গর করে।

আশুগঞ্জ নৌবন্দরের বার্দিং মাস্টার মাইন উদ্দিন তিনি জানান, কলকাতা থেকে ভারতীয় জাহাজ এমভি অভি ২ হাজার ২৭২ দশমিক ৪৮৫ টন চাল নিয়ে আশুগঞ্জ নৌবন্দরে পৌঁছেছে। এসব চাল কভার্ডভ্যানে করে আগরতলায় পাঠানো হবে। তিনি বলেন, চালগুলো কভার্ডভ্যানে লোড করা শেষে বৃহস্পতিবার ভোরে আখাউড়া স্থলবন্দর হয়ে সড়কপথে আগরতলা রওনা হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সহকারী কমিশনার কামরুল ইসলাম (ভ্যাট ও কাস্টমস) বলেন, এটি বাংলাদেশ-ভারত ট্রান্সশিপমেন্টের আওতায় হওয়ায় কোনো শুল্ক আদায় করা হবে না। এ ছাড়া অভ্যন্তরীণ জাহাজের জন্য নির্ধারিত সব ধরনের চার্জ ও ফি ট্রানজিট পণ্য থেকে আদায় করবে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো। এর মধ্যে ভয়েজ পারমিশন ফি, পাইলট ফি, বার্দিং (অবস্থান) ফি, ল্যান্ডিং ফি, চ্যানেল চার্জ ও লেবার হোলিং প্রদান করবে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.সেলিম উদ্দিন জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ আন্তর্জাতিক নৌবন্দরে ভারতীয় চালবাহী জাহাজ পৌঁছার পর পুলিশ সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা দিচ্ছে। তিনি বলেন, আখাউড়া স্থলবন্দর পৌঁছা পর্যন্ত নিরাপত্তা দিবে পুলিশ।

চাল পরিবহনে দায়িত্বপ্রাপ্ত স্থানীয় পরিবহন ঠিকাদার মো.জিয়া উদ্দিন খন্দকার জানান, বৃহস্পতিবার ভোরের মধ্যে আশুগঞ্জ থেকে আখাউরা স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় চাল নিয়ে কভার্ডভ্যানগুলো আসাম-ত্রিপুরার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে।
বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহণ কর্তৃপক্ষ বিআইডব্লিউটিএ সূত্রের খবর, ভারত-বাংলাদেশের ১৯৭২ সালের নৌ-প্রটোকল চুক্তির আওতায় মানবিক কারণে শুল্ক ছাড়াই বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তির আওতায় ৩৫ হাজার টন ভারতীয় খাদ্যশস্য (চাল) বাংলাদেশের ওপর দিয়ে পরিবহনের অনুমোদন লাভ করে ভারত। ইতোমধ্যে চুক্তির আওতায় ২০১৪ সালে আগষ্ট মাসে ১০ হাজার টন ও ২০১৫ সালের মার্চ মাসে ১০ হাজার টনসহ মোট ২০ হাজার মেট্রিক টন চাল বাংলাদেশের ওপর দিয়ে ভারত পৌঁছেছে। ওই চুক্তির আওতায় এমভি অভি নামের ভারতীয় জাহাজে করে ২২৭২ দশমিক ৪৮৫ মেট্রিক টন চাল আশুগঞ্জ নৌবন্দরে আসে।

কলকাতার বজবজ জেটি থেকে চাল পরিবহন কাজ করছে বাংলাদেশের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান আন বিজ ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড। ভারতের কলকাতার বজবজ জেটি থেকে এই চাল ত্রিপুরা রাজ্যে নিয়ে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশের ৪৫০ কিলোমিটার নৌ-পথ ও ৫০ কিলোমিটার স্থলপথ ব্যবহার করা হচ্ছে। শুধু আশুগঞ্জ বন্দরের জাহাজের পাকিং চার্জ প্রতি মেট্রিক টনে ৩০ টাকা ছাড়া এসব পণ্য থেকে আর কোন মাসুল পাচ্ছে না বাংলাদেশ সরকার।

প্রসঙ্গতঃ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ হয়ে আসামের গুয়াহাটি ও মেঘালয়ের শিলং হয়ে ত্রিপুরায় যেতে ১৫শ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। এছাড়া আসামের বরাক উপত্যকা থেকে ত্রিপুরাগামী জাতীয় সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হওয়ায় ত্রিপুরার সঙ্গে গোটা ভারত বর্ষের যোগাযোগ অনেকটাই বিচ্ছিন্ন হয়ে আছে। তাই ভারতের অনুরোধে মানবিক কারণে কোন শুল্ক ছাড়াই চাল বাংলাদেশের ওপর দিয়ে ত্রিপুরায় নেয়ার অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। মানবিক বিবেচনায় ভারতকে বিনা মাশুলে পণ্য পরিবহন বা ট্রান্সশিপমেন্ট দেয়ার ঘটনা এটি প্রথম নয়। এর আগে বাংলাদেশের নদীপথ ব্যবহার করে ২০১২ সালে ত্রিপুরায় পালাটানা বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের জন্য ভারত যাবতীয় ভারি বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম পাঠিয়েছিল এই আশুগঞ্জ দিয়ে।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Editor & Publisher: M. Arman Hossain

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
News & Editorial: 39 Mymensingh Lane, Banglamotor
Dhaka-1205, Bangladesh.