রবিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
  • প্রচ্ছদ » খেলা » ওই ৪ ভক্ত যেভাবে ‘মাশরাফি অভিযানের’ পরিকল্পনা করে
বিশেষ নিউজ

ওই ৪ ভক্ত যেভাবে ‘মাশরাফি অভিযানের’ পরিকল্পনা করে


NEWSWORLDBD.COM - October 2, 2016

ওই ৪ ভক্ত যেভাবে মাশরাফি অভিযানের পরিকল্পনা করেমেহেদী, মারুফ, আসিফ ও আবীর, ওরা চার বন্ধু। চারজনই মাশরাফির ভক্ত। থাকেন সাভারে। শনিবার রাতে শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ-আফগানিস্তান তৃতীয় একদিনের ম্যাচ দেখতে আসেন তারা।

গ্যালারিতে বসেন পাশাপাশি। খেলা চলাকালে তিন বন্ধু সংযত থাকলেও অনেকটা বেপরোয়া হয়ে ওঠেন মেহেদী। তিনি কী আবেগের বশে নিজের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিলেন, নাকি অন্য কিছু!

মেহেদী গ্যালারি ছেড়ে দৌড়ে ঢুকে পড়েন মাঠে এবং ছুটে যেতে থাকেন মাশরাফির দিকে। মাশরাফি প্রথমে কিছুটা ভড়কে গেলেও ভক্তকে কাছে পেয়ে জড়িয়ে ধরেন। ততক্ষণে ছুটে আসেন মাঠে থাকা নিরাপত্তাকর্মীরা। তারা মেহেদীকে মাঠ থেকে বের করে নিয়ে যান।

খেলা শেষে পুলিশ মেহেদীসহ তার বন্ধুদের মিরপুর মডেল থানায় নিয়ে যায়। মাশরাফির এই ভক্তদের পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে। বিশেষ করে মেহেদী মাঠের ভেতরে কেন ঢুকে পড়লেন, তার কারণ জানতে চাইছে পুলিশ।

চার যুবককে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়ার খবর পেয়ে ছুটে আসেন তাদের স্বজন ও অভিভাবকরা। স্বজনদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, মাশরাফির ভক্ত এই চার যুবকের বাড়ি সাভারে। এদের মধ্যে মেহেদী হাসান ইউনাইডেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির দ্বিতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী। তানভীর আহমেদ মারুফ ও আয়মান আসিফ রাফি এসএইচসি পাসের পর বর্তমানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। আর আবীর হোসেন ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির ছাত্র।

মিরপুর থানার গেটের বাইরে অপেক্ষা করছেন মেহেদীর বাবা জয়নাল আবেদীন ও চাচা শ্যামল, মারুফের ভাই তানভীর, রাফির বাবা আখতারুজ্জামান। কিন্তু আটক যুবকদের সঙ্গে কাউকেই দেখা করতে দিচ্ছে না পুলিশ, এমনকি সাংবাদিকদেরও না। জয়নাল আবেদীন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,  ‘মেহেদী আমার ছেলে । মারুফ, রাফি ও আবীর মেহেদীর ঘনিষ্ঠ বন্ধু। ওরা সবাই মাশরাফির ভক্ত। চারজন একত্রে খেলা দেখতে এসেছিল।’

মিরপুর মডেল থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অজিৎ রায় আটক যুবকদের সম্পর্কে বলেন, ‘মেহেদীসহ চারজনকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।ওসির কক্ষে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। সেখানে আরও সিনিয়র অফিসাররাও আছেন।’

মিরপুর জোনের ডিসি জসীম জানান,  ‘পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানিয়েছে, সে মাশরাফির ভক্ত। তবে সামনে যেহেতু ইংল্যান্ড ক্রিক্রেট দল ঢাকায় আসবে তাই তাকেসহ চার যুবককে আরও জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় পুলিশ। তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তাদের ছেড়ে দেওয়া হবে কিনা।’

টিভির পর্দায় দেখা গেছে, বাংলাদেশের বোলিংয়ের ২৯তম ওভারের সময়ের ঘটনা। আফগানিস্তানের তখন সাত উইকেট নাই। রান মাত্র ১০২। হঠাৎ কোনও একজনের মাঠে ঢুকে পড়া চোখে পড়ে মাশরাফির। তিনি নিজেও প্রথমে ভড়কে গিয়েছিলেন। ওই যুবক যখন হাত বাড়িয়ে দেন, মাশরাফিও হাত বাড়ালেন। এরপর মুহূর্তেই তাকে বুকে জড়িয়ে নিলেন। ততক্ষণে হাফ ডজন নিরাপত্তাকর্মী ও মাঠের স্টাফরা ঘিরে ফেলেন ওই তরুণ ভক্তকে। দুজনে মিলে মাশরাফির বুক থেকে ওই তরুণকে টেনে বের করার আপ্রাণ চেষ্টা করলেন। কিন্তু কিছুতেই ছাড়ছেন না। নিরাপত্তাকর্মীদের অ্যাকশন দেখে মাশরাফি হয়তো আঁচ করতে পারলেন ওই যুবকের অবস্থা পরবর্তী সময়ে কী হতে পারে। তাই তিনি পরিবেশটা একটু হালকা করার চেষ্টা করলেন। তিনি নিজেই এই ভক্তকে মাঠের বাইরে দিয়ে আসতে এগিয়ে যান। যখন নিরাপত্তাকর্মীদের হাতে ছেড়ে দিলেন, তখনও সংশয় রয়ে গেল বাংলাদেশ অধিনায়কের মনে। সে কারণেই কিনা মাশরাফির অনুরোধে ওই ভক্তকে বসিয়ে রাখা হয় গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডে।

পুলিশ সূত্র জানায়,  ঘটনার পর খেলার মাঠে ওই তরুণকে কড়া নজরদারিতে রেখেছিল পুলিশ। খেলা শেষে তাকেসহ  চারজনকে রাত ১০টার দিকে মিরপুর মডেল থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এরপর তাদেরকে রাত ১২.১০ মিনিটে পুনরায় স্টেডিয়ামে নিয়ে যায় পুলিশ  এবং রাত ১২.৪০ মিনিটে আবার থানায় নিয়ে আসা হয়। স্বজনরা থানায় আসলেও আটক যুবকদের সঙ্গে তাদের দেখা করার অনুমতি মেলেনি। পুলিশের পক্ষ থেকে তাদেরকে রবিবার সকালে থানায় আসতে বলা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিরপুর থানার এক কর্মকর্তা জানান, মেহেদীসহ আটক চার যুবককে রবিবার আদালতে পাঠানো হবে।

আটক মেহেদী হাসান খেলার মাঠে বসে তার ফেসবুকে সর্বশেষ স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘উইথ ভাই ব্রাদার্স ।অনলি বাংলাদেশি টাইগার্স আর রিয়াল। আজ  জিতেই বাসায় ফিরবো ইনশাল্লাহ।’ এই স্ট্যাটাসের সঙ্গে গ্যালারিতে বসা মেহেদী (গোলাপি শার্ট চোখে চশমা) ও তার তিন বন্ধুর একটি ছবিও পোস্ট করা হয়েছে। এই ছবির যুবকরাই যে আটক চার যুবক বাংলা ট্রিবিউনকে তা নিশ্চিত করেছেন মেহেদীর চাচা শ্যামল। তিনিও মেহেদীর আটকের খবর পেয়ে মিরপুর থানায় এসেছেন।

এ বিষয়ে মিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব রহমান বলেন, ‘আমরা তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছি। হঠাৎ মাঠে দৌড়ে প্রবেশের কারণ জানার চেষ্টা করছি।’

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Editor & Publisher: M. Arman Hossain

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
News & Editorial: 39 Mymensingh Lane, Banglamotor
Dhaka-1205, Bangladesh.