English
শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০১৭
বিশেষ নিউজ

রাষ্ট্রপতিকে যা বলবে আওয়ামী লীগ


নিউজওয়ার্ল্ডবিডি.কম - ১১.০১.২০১৭

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্তের ওপর আস্থা রয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের। বুধবার বিকালে দলটির পক্ষ থেকে বঙ্গভবনকে সে বার্তা পৌঁছে দেয়া হবে। পাশাপাশি নিজেদের কিছু মতামতও তুলে ধরবে আওয়ামী লীগ।

৪ঠা জানুয়ারি নির্বাচন কমিশন সংক্রান্ত প্রস্তাব ও সুপারিশমালা প্রণয়নে ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। পরে কমিটির সদস্যরা বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করেন। রোববার তারা সুপারিশ চূড়ান্ত করেন। এতে ইসি গঠনে রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্তের ওপর আস্থা রাখার বিষয়ে কমিটির সদস্যরা বিতর্ক ছাড়াই ঐকমত্যে পৌঁছেন। ওই কমিটির বেশ কয়েক সদস্যের সঙ্গে কথা বললে তারা এসব তথ্য জানান।

নতুন ইসি গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিক সংলাপ করছেন। এরই ধারাবাহিকতায় কাল আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংলাপে বসবেন তিনি। ইতিমধ্যে বিএনপি, জাতীয় পার্টি (এরশাদ), ওয়ার্কার্স পার্টি, কমিউনিস্ট পার্টি, জাসদসহ (ইনু) ১৪টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ হয়েছে। এসব দলের পক্ষ থেকে পরবর্তী নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে বেশ কিছু প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে নির্বাচন কমিশন গঠনে একটি আইন করার প্রস্তাবও রয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এ ধরনের আইন বা নতুন কোনো প্রস্তাব দেয়ার সম্ভাবনা নেই বলে দলের নীতিনির্ধারক নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়।

দলের শীর্ষ নেতারা জানান, ইসি গঠনে সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে রাষ্ট্রপতিকে অনুরোধ করা হবে। তবে এবার না হলেও পরবর্তীতে ইসি গঠনের জন্য সংবিধানে বর্ণিত আইনটি করার জন্য মতামত তুলে ধরবে দলটি।

তারা জানান, আওয়ামী লীগ চায় একটি স্বাধীন ও শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠন হোক। সংবিধানসম্মতভাবে রাষ্ট্রপতিকে ইসি গঠনের জন্য অনুরোধ জানানো হবে। তবে অতীতের মতো আওয়ামী লীগ এবার ইসি শক্তিশালীকরণে কিছু প্রস্তাব তুলে ধরবে।

এ প্রসঙ্গে নির্বাচন সংক্রান্ত কমিটির সদস্য আবদুল মতিন খসরু বলেন, ইসি গঠন নিয়ে প্রেসিডেন্টকে যেসব সুপারিশ দেয়া হবে তা ঐকমত্যের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে। একই মন্তব্য করেন কমিটির অপর সদস্য ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, আমাদের তৈরি সব সুপারিশে প্রত্যেক সদস্য একমত হয়েছেন। যেহেতু প্রস্তাবগুলো মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে দেয়া হবে তাই আগে মিডিয়ায় এ নিয়ে কোনো তথ্য দিতে পারছি না। ১০ সদস্যের ওই কমিটিতে আহ্বায়ক করা হয়েছে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হোসেন তওফিক ইমামকে।

কমিটির সদস্যরা হলেন- ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর, মো. রশিদুল আলম, অ্যাম্বাসেডর মো. জমির, অ্যাডভোকেট মো. আবদুল বাসেত মজুমদার, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, আইনবিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মতিন খসরু।

দলের সংশ্লিষ্ট নেতারা জানান, সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ইসি গঠন নিয়ে নতুন করে কোনো সমালোচনা, বিতর্ক বা রাজনৈতিক জটিলতা তৈরি হতে দেবে না আওয়ামী লীগ। তাই সংবিধান অনুযায়ী বর্তমান পদ্ধতি অনুসরণের প্রস্তাবই দেবে দলটি।

সাবেক প্রেসিডেন্ট মো. জিল্লুর রহমান নির্বাচন কমিশন গঠন করতে প্রথমে ইসিতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে মতামত নেন। এরপর সার্চ কমিটি করে তিনি নির্বাচন কমিশন গঠন করেন এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্য নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগ দেন। বর্তমান প্রেসিডেন্টও প্রথমে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছেন। এরপর সংবিধান অনুযায়ী অতীতে যে পদ্ধতিতে ইসি গঠন করা হয়েছে নতুন ইসিও সেই পদ্ধতিতে গঠন করা হবে।

এদিকে সংবিধানের ৪৮ অনুচ্ছেদের ৩ উপ-ধারায় বলা আছে, প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতি নিয়োগ ছাড়া অন্য সব সাংবিধানিক পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পরামর্শ করে নিয়োগ দেবেন রাষ্ট্রপতি। সে অনুযায়ী নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পরামর্শ করবেন তিনি। তাই আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আলাদাভাবে বিশেষ কোনো প্রস্তাবের প্রয়োজনীয়তাও মনে করছেন না দলটির নীতিনির্ধারকরা।

উল্লেখ্য, সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে লইয়া এবং প্রেসিডেন্ট সময়ে সময়ে যেরূপ নির্দেশ করিবেন, সেইরূপ সংখ্যক অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারকে লইয়া বাংলাদেশের একটি নির্বাচন কমিশন থাকিবে এবং উক্ত বিষয়ে প্রণীত কোনো আইনের বিধানাবলি-সাপেক্ষে প্রেসিডেন্ট প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারকে নিয়োগ দান করিবেন।’

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...







Editor: AHM Anwarul Karim

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
43/B/1, East Hazipara, Rampura
Dhaka-1219, Bangladesh.