English
শুক্রবার ২৮ এপ্রিল ২০১৭
বিশেষ নিউজ

সীমান্ত পেরিয়ে ৪০টি ভারতীয় হাতির তাণ্ডব


নিউজওয়ার্ল্ডবিডি.কম - ০৮.০২.২০১৭


কুড়িগ্রামের রৌমারী-রাজিবপুর সীমান্তে ৪০টি ভারতীয় হাতির একটি পাল বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে ব্যাপক তাণ্ডব চালাচ্ছে। গত দু’দিনে শতশত একর জমির ভুট্টা ক্ষেত নষ্ট করে লোকালয়ের দিকে তেড়ে আসছে।

গত সোমবার দিবাগত রাতে রৌমারীর দক্ষিণ মানকারচর সীমান্তের আন্তর্জাতিক মেইন পিলার (১০৭২-২৭)এলাকা দিয়ে ৪০টি হাতি দল বেঁধে অনুপ্রবেশ করে। এরপর তারা উত্তর দিকে বাউলপাড়া, মিয়াপাড়া, লাঠিয়ালডাংগা,দক্ষিণ আলগারচর,উত্তর আলগারচর,খেওয়ারচর,বকবান্ধা এলাকা দিকে অগ্রসর হচ্ছে।

জামালপুর ৩৫ ব্যাটালিয়নের খেওয়ারচর ক্যাম্প কমান্ডার মহর আলী গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গভীর রাতে হাতির পাল সীমান্তের ওপার থেকে নেমে এসে চালাচ্ছে তাণ্ডব। তাদের ডাক-চিৎকারে আতঙ্কিত মানুষ গ্রাম ছেড়ে চলে যাচ্ছে নিরাপদ আশ্রয়ে। ফলে সীমান্তবর্তী প্রায় ৪০টি গ্রাম জনশূন্য হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

হাতির দলটি যেখনেই যাচ্ছে আতঙ্কিত মানুষ আগুন জ্বালিয়ে ও ঢাক-ঢোল পিটিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা করছে। তবে এতে বাধ মানছে না বুনো হাতির দল।

বেশি কিছু করলে এগুলো মানুষদের তাড়া করছে।এ সময় হাতি আখ ,ভুট্টা ও সরিষাসহ শত শত একর জমির ফসল তছনছ করছে।

সীমান্তবাসী  আমজাদ, সামচুল, ফরিদ, সিরাজুল ইসলাম জানান, রাজিবপুর মিয়ারচর নামক সীমান্ত এলাকায় একটি হাতি মারা যাওয়ায় আরো বেপরোয়া হয়ে উঠছে হাতির পাল। সঙ্গী হারানোর বেদনায় চিৎকার করে কান্নাকাটি করছে। যে জায়গাটিতে ওই মরা হাতিটিকে মাটিচাপা দেয়া হয়েছে ওই জায়গায় সমবেত হয়ে চিৎকার করে কাঁদছে তারা। প্রায় প্রতিরাতেই এমন ঘটনা ঘটছে।

বনবিভাগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (রৌমারী, চিলমারী, রাজিবপুর) ইকবাল হোসেন খান বলেন, হাতিটি মারা যাওয়ায় তারা প্রতিরাতে সেখানে আসছে এবং কান্নাকাটি করছে। এটা আরো কিছুদিন থাকবে। এছাড়াও পাহাড়ে কোনো লতাগুল্ম না থাকায় খাবারের সন্ধানে লোকালয়ে নেমে আসছে তারা।

রৌমারী সীমান্তে প্রচুর পরিমাণে ভুট্টা ও আখ চাষ হয়েছে। মূলত সেগুলো খাবার লোভেই আসছে তারা।

ইতোমধ্যেই শতশত একর জমির ক্ষেত-খামারের ক্ষতি সাধন করেছে। আমরা ঢাক-ঢোল পিটিয়ে ও আগুন জ্বালিয়ে হাতি তাড়ানোর জন্য স্থানীয়দের পরামর্শ দিচ্ছি। কিন্তু কিছুতেই তারা যাচ্ছে না।

ওই ওয়ার্ডের নারী সদস্য মিনারা বেগম জানান, ওই হাতির পালে ৪০টির বেশি হাতি রয়েছে। গত দুই দিন ধরে এলাকায় হাতিগুলো বেশি তাণ্ডব চালিয়েছে। এরা সীমান্তের কাঁটাতার ভেদ করে দেশে ঢুকে পড়ে। পরে পালাক্রমে খেওয়ার চর, আলগারচর এলাকায় ব্যাপক তাণ্ডব চালায়। এসময় তছনছ করে কৃষকের চার একরেরও বেশি ভূট্টা ক্ষেত, ১৫ একর ধানি জমি। উপড়ে ফেলেছে জমিতে রোপণ করা অগভীর নলকুপের ১২টি পাইপ, নষ্ট করেছে সেচযন্ত্র।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা হলেন- উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের খেওয়ারচর গ্রামের সাধু মিয়া, রুপচান মিয়া, আব্দুল মজিদ, আব্দুল আওয়াল, আজাদ, মাহুবর রহমান, হবি মিয়া, আব্দুল ছাত্তার, নজরুল ইসলাম, ফরিজুল হক, লুৎফর রহমান।

ক্ষতিগ্রস্ত এসব কৃষক অভিযোগ করে বলেন, সীমান্ত দিয়ে এভাবে হাতি ঢুকে পড়ায় আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও প্রশাসনের কোনো নজর নেই।
বিষয়টি জানতে রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন তালুকদারের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

মঙ্গলবার রাত দশটার দিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হাতির পালটি খেওয়ার চর বাজারের কাছে একটি ভুট্টাক্ষেতে অবস্থান করছে।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...







Editor: AHM Anwarul Karim

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
43/B/1, East Hazipara, Rampura
Dhaka-1219, Bangladesh.