বুধবার ১৮ অক্টোবর ২০১৭
বিশেষ নিউজ

প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে সরে গেলেন ট্রাম্প


NEWSWORLDBD.COM - June 2, 2017

আরমান হোসেন টুটুল, বিশেষ প্রতিনিধি
জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় করা প্যারিস চুক্তি থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসে দেওয়া এক বক্তৃতায় প্যারিস চুক্তি থেকে নিজের দেশের নাম প্রত্যাহার করার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

এ চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের ওপর ‘অর্থনৈতিক বোঝা’ চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘এটি এমন একটি চুক্তি, যার কারণে যুক্তরাষ্ট্র অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে; কিন্তু লাভবান হবে অন্য দেশ।’ তাই আরো ‘ন্যায্য’ চুক্তির জন্য তিনি বিশ্বনেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন বলেও জানিয়েছেন।

ট্রাম্প বলছেন, প্যারিস চুক্তিতে মার্কিনিদের ওপর অতিরিক্ত অর্থনৈতিক বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ চুক্তি মানলে যুক্তরাষ্ট্র অর্থনৈতিকভাবে অসুবিধায় পড়বে এবং উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে।

ট্রাম্প জানিয়েছেন, এ চুক্তির কারণে যুক্তরাষ্ট্রের তিন ট্রিলিয়ন ডলার ক্ষতি হবে এবং প্রায় ৬৫ লাখ মানুষ চাকরি হারাবে।

হোয়াইট হাউসে দেওয়া বক্তৃতায় ট্রাম্প বলেন, ‘আমি প্যারিসের নয়, পিটসবুর্গের (যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া রাজ্যের নগরী) মানুষকে প্রতিনিধিত্ব করতে নির্বাচিত হয়েছি। আমি প্রতিজ্ঞা করছি, যেই চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ দেখা হয়নি, সেই চুক্তি থেকে আমরা নাম প্রত্যাহার করে নেব, নতুবা এটি নিয়ে পুনরায় আলোচনায় বসতে হবে।’

এদিকে, ট্রাম্পের এ সিদ্ধান্তের সমালোচনা উঠেছে বিশ্বব্যাপী। খোদ যুক্তরাষ্ট্রেই অনেকে এ বিষয়ে ট্রাম্পের সিদ্ধান্তে নাখোশ। সমালোচনা করেছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও। ২০১৫ সালে প্যারিস চুক্তি হওয়ার সময় তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা তখন সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

ট্রাম্পের এ সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন। এক বিবৃতিতে সংস্থাটি জানায়, আজ বৈশ্বিক সম্প্রদায়ের জন্য ব্যথিত হওয়ার দিন।

তবে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ট্রাম্প যে প্যারিস চুক্তি থেকে সরে আসবেন, সেই বার্তা তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়ই দিয়েছিলেন।

সর্বশেষ ইতালির সিসিলির তাওরমিনাতে অনুষ্ঠিত বিশ্বের শিল্পোন্নত সাত দেশের জোট জি-সেভেনের শীর্ষ সম্মেলনে ট্রাম্প এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার নামে সময়ক্ষেপণ করেছেন শুধু। এই সম্মেলনের মূল আলোচ্যসূচি ছিল প্যারিস জলবায়ু চুক্তি বাস্তবায়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ।

এদিকে গতকাল সংবাদমাধ্যম জানিয়েছিল, জলবায়ু পরিবর্তন রোধে প্যারিস চুক্তি কার্যকরের ব্যাপারে ভিন্ন নীতির কারণে জি-সেভেন জোটে যুক্তরাষ্ট্রের ‘স্বাভাবিক কর্তৃত্ব’ কার্যকর থাকছে না।

কারণ, এরই মধ্যে শিল্পোন্নত সাত দেশের জোট জি-সেভেনভুক্ত দেশ চীন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত আরো পাঁচটি দেশ যুক্তরাষ্ট্রকে বাদ দিয়েই এ ব্যাপারে একটি যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করেছে। এতে প্যারিস চুক্তি কার্যকর করার জন্য ‘সর্বোচ্চ রাজনৈতিক সদিচ্ছার’ ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।

সিসিলির তাওরমিনাতে অনুষ্ঠিত বিশ্বের শিল্পোন্নত সাত দেশের জোট জি-সেভেনের শীর্ষ সম্মেলনের মূল আলোচ্যসূচি ছিল প্যারিস জলবায়ু চুক্তি বাস্তবায়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ। কিন্তু জি-সেভেনভুক্ত দেশগুলোর নেতারা চেষ্টা করেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছ থেকে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি নিয়ে অগ্রসর হওয়ার কোনো অঙ্গীকার আদায় করতে পারেননি।

প্যারিস চুক্তিতে আমেরিকাসহ আরো ১৮৭টি দেশ মিলে অঙ্গীকার করেছিল যে, বৈশ্বিক উষ্ণায়নের মাত্রা তারা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কম রাখবে; এমনকি দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি নামিয়ে আনতে চেষ্টা করবে।

তবে নতুন নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জলবায়ু পরিবর্তনকে ‘প্রয়োজন অনুযায়ী সময়ে সময়ে ওঠানো একটি ধাপ্পাবাজি’ বলে অভিহিত করেছিলেন। এ ছাড়া বৈশ্বিক উষ্ণায়নকে ‘চীনের ধোঁকাবাজি’ বলেও ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন তিনি।

প্রাণ-প্রকৃতি-পরিবেশ রক্ষায় ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে প্যারিসের ‘কপ-২১’ জলবায়ু চুক্তিটিকেও পুরোনো ধারণা বলে নির্বাচনী প্রচারের সময় মতপ্রকাশ করেছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। অর্থনীতির জন্য ক্ষতিকর যুক্তি দেখিয়ে ট্রাম্প জলবায়ু নীতি থেকে সরে আসার কথা জানিয়েছিলেন। কারণ, এ চুক্তির আলোকে যে জলবায়ু তহবিল গঠিত হয়, তার বড় জোগানদাতা যুক্তরাষ্ট্র। এই তহবিল থেকেই জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলো সাহায্য পায়।

ট্রাম্পের সঙ্গে মতৈক্য না হওয়ায় ধারণা করা হচ্ছে, চীন ও ইইউ এই ইস্যুতে এখন নেতৃত্বের জন্য তৈরি হচ্ছে। আর এর ফলে আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে যুক্তরাষ্ট্রের কিছুটা চাপ বাড়বে।

বলা হচ্ছে, বছরখানেক ধরেই চীন ও ইইউ জলবায়ু পরিবর্তন এবং ক্লিন এনার্জি নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছে একটি যৌথ বিবৃতি দেওয়ার বিষয়ে কাজ করছিল।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Chief Editor & Publisher: A. K. RAJU

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: 9635272, 01787506342

©Titir Media Ltd.
39, Mymensingh Lane (2nd Floor), Banglamotor
Dhaka, Bangladesh.