বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৮
বিশেষ নিউজ

সরকারি চাকরিজীবীদের হাজিরা ১০ মিনিট দেরি হলেই ‘লেট’


NEWSWORLDBD.COM - June 4, 2017

বিশেষ প্রতিনিধি: সচিবালয়ে প্রত্যেক মন্ত্রণালয়ে চালু হতে যাচ্ছে ইলেক্ট্রনিক ডিজিটাল হাজিরা পদ্ধতি। এই হাজিরায় যানজটের কথা বিবেচনা করে সর্বোচ্চ ১০ মিনিট দেরি করার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। এর বেশি হলেই তাকে ‘লেট’ হিসেবে বিবেচনা করে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

ইতোমধ্যে প্রাথমিক পর্যায়ে তিন মন্ত্রণালয়ে ইলেক্ট্রনিক হাজিরা কার্যক্রম চালু হয়েছে।

এই পদ্ধতিতে মনিটরিং করা হবে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অফিসে হাজিরা। এতে কেউ বিলম্বে অফিসে হাজির হলে, সেটিরও রেকর্ড থাকবে বলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

ইলেক্ট্রনিক হাজিরা পদ্ধতিতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করাসহ জনপ্রশাসনের সামগ্রিক কার্যক্রম আরো গতিশীল হবে বলে মন্তব্য করেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা।

তিনি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এই পদ্ধতি চালু হলে সরকারি অফিসে কাজে ফাঁকি দেওয়া বন্ধ হবে। তেমনি কাজের গুণগত মান বাড়বে। সচিবালয়ে প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারী কোন সময়ে আগমন এবং প্রস্থান করছেন তা জানতে ইতোমধ্যে জনপ্রশাসন ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে ইলেক্ট্রনিক হাজিরা চালু হয়েছে। তবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে ইলেক্ট্রনিক হাজিরা চালু হলেও কয়েকদিন পর ইলেক্ট্রনিক যন্ত্র নষ্ট হয়ে যায়। এতে কিছুটা বিপাকে পড়েন ওই মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

সরকারি কর্মচারী বিধি-১৯৭৯ অনুযায়ী প্রত্যেকে সকাল ৯টায় অফিসে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও রাজধানীতে যানজট অথবা হঠাৎ কোনো সমস্যা বিষয়ে চিন্তা করে ৯টা ৫ মিনিট থেকে ১০ মিনিটের মধ্যে অফিসে উপস্থিতির সময় নির্ধারণ করা হচ্ছে। এরপর যারা অফিসে আসবেন তাদের লেট হিসেবে ধরা হবে। আর এ হাজিরা শিট স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মাসের শেষে পর্যবে¶ণ করবেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক বলেন, গত সপ্তাহ ধরে সচিবালয়ে ইলেক্ট্রনিক হাজিরা পদ্ধতির প্রাথমিক কার্যক্রম চলছে। আগামী সপ্তাহে চূড়ান্ত কার্যক্রমের জন্য মিটিং বসবে। সেখানেই হাজিরা কলাকৌশল নির্ধারিত হবে। এখন প্রত্যেক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ডাটাবেজ তৈরির কাজ চলছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, আগে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ১০টায় অফিসে এসে ৯টায় খাতায় লেখতে পারতেন। এখন সেই সুযোগ নেই, ডকুমেন্ট থেকে যাবে। এতে হাজিরা নিয়ে ঝামেলা সৃষ্টি হবে না। ইতোমধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রায় ৪শ কর্মকর্তা-কর্মচারীর ফিঙ্গারপ্রিন্ট নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রীদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিতে হবে কি না এ সম্পর্কে তিনি জানেন না বলে জানান।

মন্ত্রণালয়ে ইলেক্ট্রনিক হাজিরার বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ইলেক্ট্রনিক হাজিরার বিষয়ে এখনো ততটা পরিষ্কার নই। কারণ আমি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা হলেও অধিকাংশ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে থাকতে হয়। আর মন্ত্রী বাসা থেকে বের হয়ে সচিবালয়ে না এসে সভা-সেমিনারে যান। তখন আমি কি বাসা থেকে সচিবালয়ে এসে ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিয়ে আবারো সেই সেমিনারে যাবো। এটা দ্বিগুণ কষ্ট। অর্থাৎ ফিঙ্গারপ্রিন্টের সময় এসব বিষয় চিন্তা করতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেট অধিবেশনে ডিজিটাল পরিচয়পত্র ব্যবহার করে হাজিরা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংসদ কক্ষে তাকে নীল ফিতায় সবুজ রঙের নতুন ওই পরিচয়পত্র ঝুলিয়ে প্রশ্নোত্তরপর্বে অংশ নিতে দেখা যায়।

সংসদ সদস্যদের হাজিরা গণনার ব্যবস্থা ডিজিটাল করার অংশ হিসেবে নতুন এই পরিচয়পত্র দিচ্ছে সংসদ সচিবালয়। নতুন এই পরিচয়পত্র পাওয়ার পর সংসদ সদস্যদের তা নির্দিষ্ট যন্ত্রে স্ক্যান করিয়ে সংসদ কক্ষে ঢুকতে হবে। সংসদের কোরাম ও হাজিরা গণনার সনাতন পদ্ধতির ডিজিটাইজেশনের জন্য এ নিয়ম করা হয়েছে। আগে সংসদ সদস্যরা নির্দিষ্ট খাতায় সই করে হাজিরা দিতেন।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Editor & Publisher: Anwarul Karim

NEWSWORLDBD.COM
email: newsworldbd1@gmail.com
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
News & Editorial: 39 Mymensingh Lane, Banglamotor
Dhaka-1205, Bangladesh.