সোমবার ১১ ডিসেম্বর ২০১৭
বিশেষ নিউজ

মির্জা ফখরুলের গাড়িবহরে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান দিয়ে হামলা


NEWSWORLDBD.COM - June 18, 2017

নিজস্ব প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম: রাঙ্গামাটিতে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যাওয়ার পথে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় এলাকায় বিএনপি মহাসচিবের গাড়িবহরে হামলা হয়েছে।

 

রোববার বেলা সাড়ে ১০টায় রাঙ্গুনিয়ায় ইছাখালী হাসপাতালের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

 

এতে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম, বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আওয়াজ হোসেন শুভ, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসেম।

 

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম ঘটনার পর টেলিফোনে এ প্রতিবেদককে বলেন, প্রায় ২০-২৫ জন লোক অতর্কিতে গাড়িবহরে লাঠিসোঁটা, রামদাসহ হামলা করে। আমার গাড়ির কাচ ভেঙে গেছে। গাড়ি তছনছ করা হয়েছে। গাড়ির ভাঙা কাচ আমার শরীরে এসে লেগেছে। আমিসহ আমাদের কয়েকজন নেতা আহত হয়েছেন।
মির্জা ফখরুলের গাড়িবহরে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীরও ছিলেন। জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে হামলা করা হয়েছে বলে দাবি করে তিনি বলেন, ‘এখানে যে হামলার ঘটনা ঘটেছে, এটা অবিশ্বাস্য। আমরা রাঙামাটির কাপ্তাই হয়ে ভোটঘরে রিলিপ দিতে যাচ্ছি। এটা সবাই জানে। ৫০ থেকে ৬০ জন লোক লাঠিসোটা, রড, ছুরি, ধামা, রামদা নিয়ে… কীভাবে যে পাথর মারছে আর গাড়ি ভাঙছে…।’

 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতা বলেন, ‘কোনো সভ্য দেশে রাজনীতি যে এ পর্যায়ে আসবে, তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। আমরা যে কীভাবে জীবন নিয়ে বের হয়ে আসছি, জীবন নিয়ে যেতে পারব, এটা বিশ্বাস করি নাই। এ ধরনের আক্রমণ আমার জীবনে দেখি নাই।’

 

রাঙ্গুনিয়ার ইছাখালী এলাকায় এ হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ করেছেন দলের নেতা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, ৫০ থেকে ৬০ জন লোক জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে এ হামলা চালায়। তাদের হাতে দেশি অস্ত্রের পাশাপাশি আগ্নেয়াস্ত্রও ছিল। অনবরত পাথর নিক্ষেপ করা হয়। আমরা জীবন নিয়ে ফিরে এসেছি। জীবনে এ ধরনের হামলা দেখিনি।’
সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম বলেন, আমরা মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছি। ওই জায়গার বীভৎসতা ভাষায় প্রকাশ করার মত না। প্রত্যেক হামলাকারীর হাতেই আগ্নেয়াস্ত্র ও লাঠিসোঁঠা ছিল। তারা সবাই আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী।
স্থানীয় ব্যবসায়ী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়ক হয়ে ৪টি গাড়ি রাঙ্গামাটির দিকে যাচ্ছিলো। এসময় ইছাখালী হাসপাতালের সামনে হঠাৎ ২৫/৩০ জন দুর্বৃত্ত দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সড়কে অবস্থান নিয়ে গাড়িগুলোর গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে কিছু বুঝে উঠার আগেই তারা গাড়ি বহরে হামলা ও ভাংচুর করে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে গাড়িগুলো রাঙ্গামাটির দিকে অগ্রসর না হয়ে চট্টগ্রামের দিকে ফেরত যায়।

 

ঘটনাস্থলে থাকা রাঙামাটি জেলা বিএনপির সভাপতি হাজি মো. শাহ আলম বলেন, পাহাড় ধসের ঘটনায় হতাহতদের প্রতি সহমর্মিতা জানাতে এবং সহযোগিতা করতে বিএনপির মহাসচিবের নেতৃত্বাধীন একটি দল রাঙামাটিতে আসছিল। চট্টগ্রাম থেকে গাড়িবহরটি রাঙামাটি আসার পথে ইছাখালীতে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

 

‘আওয়ামী লীগ নেতা হাছান মাহমুদের সমর্থকরা এ হামলা চালিয়েছে। হামলায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ডা. শুভসহ কয়েকজন আহত হয়েছেন। তাঁদের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। এলোপাতাড়ি মারধর করা হয়েছে। পাথর নিক্ষেপ করা হয়েছে।’

 

এ ঘটনার পর বিএনপির প্রতিনিধিদল রাঙামাটি না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ওই এলাকার পোমড়া খাঁ সমজিদ কমপ্লেক্সে নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন। তাঁরা চট্টগ্রাম শহরে ফিরে আসছেন। ঘটনাস্থলের রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ আহমেদ এসে বিএনপি নেতাদের তোপের মুখে পড়েন। হামলার ঘটনা জানতে রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ মো. আহসানুল কাদের ভূইয়াকে ফোনে চেয়ে পাওয়া যায়নি।

 

মির্জা ফখরুল চট্টগ্রাম ফিরে সংবাদ সম্মেলন করে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানাবেন বলে জানান বিএনপি নেতা হাজি মো. শাহ আলম।

 

সাম্প্রতিক পাহাড় ধসে রাঙামাটি, বান্দরবান ও চট্টগ্রামে প্রায় দেড়শজনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Chief Editor & Publisher: Advocate Golzer Hossain

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
Sonartori Tower, Banglamotor
Dhaka-1205, Bangladesh.