মঙ্গলবার ২২ অগাস্ট ২০১৭
বিশেষ নিউজ

প্রশাসন ক্যাডারের সঙ্গে অন্য ক্যাডার বৈষম্য আরও বাড়াল সরকার


NEWSWORLDBD.COM - June 22, 2017

নিজস্ব প্রতিবেদক: জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ জারি করা একটি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে বিভিন্ন ক্যাডারের সঙ্গে প্রশাসন ক্যাডারের দূরত্ব বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। একই সুবিধা সমমানের কর্মকর্তাদের না দেওয়া হলে প্রশাসনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হবে বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

মঙ্গলবার ২১ জুন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত গেজেট জারি করেছে। এতে বলা হয়েছে, বর্তমানে প্রাধিকারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে যুগ্ম সচিবরা সার্বক্ষণিক সরকারি গাড়ি সুবিধা পান। এখন এ সুযোগ পাবেন উপসচিবরাও। সেখানে বলা হয়েছে, ‘সরকারের উপসচিবদের সার্বক্ষণিক সরকারি গাড়ি ব্যবহারের প্রাধিকার প্রদান করা হইল। ’

যুগ্ম সচিবদের সার্বক্ষণিক গাড়ি দেওয়ার কথা সরকারের। কিন্তু তা নিশ্চিত করতে পারে না যানবাহন অধিদপ্তর। এ কারণে যুগ্ম সচিবরা সরকারি গাড়ি না নিয়ে ব্যক্তিগত গাড়ি কেনা ও রক্ষণাবেক্ষণ বাবদ ভাতা দেওয়ার জন্য সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করেন। একসময় তাঁদের দাবি মেনে নেওয়া হয়। তাঁদের ব্যক্তিগত গাড়ি কেনা ও রক্ষণাবেক্ষণ বাবদ বিনা সুদে ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। বর্তমানে ‘গাড়ি সেবা নগদায়ন নীতিমালার’ আওতায় তাঁরা বিনা সুদে ২৫ লাখ টাকা ঋণ পান। সেই সঙ্গে গাড়ি চালনার জন্য প্রতি মাসে দেওয়া হয় ৪৫ হাজার টাকা। এই বিপুল পরিমাণ ভাতাই উপসচিবদের সার্বক্ষণিক গাড়ি ব্যবহারের প্রাধিকার পেতে উৎসাহিত করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় তাঁদেরও গাড়িসেবা নগদায়ন নীতিমালার আওতায় আনার উদ্যোগ নিচ্ছে।

বর্তমানে প্রশাসনে উপসচিব রয়েছেন ১ হাজার ৫৩৯ জন। এমনিতেই সরকারি যানবাহন অধিদপ্তর যুগ্ম সচিব, অতিরিক্ত সচিব, সচিব, উপমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, মন্ত্রী, উপদেষ্টাসহ অন্যদের গাড়ি সরবরাহ করতে হিমশিম খাচ্ছে। সংস্থাটি গঠনের দীর্ঘদিন পরও এর ব্যবস্থাপনা নিয়ে নানা অভিযোগ রয়েছে। এর সঙ্গে এখন যোগ হচ্ছে প্রায় দেড় সহস্রাধিক কর্মকর্তার গাড়ি।

উপসচিবদের গাড়ি দেওয়া হলেও বিভিন্ন দপ্তরের পঞ্চম গ্রেডের কর্মকর্তারা এ সুবিধার বাইরে থাকছেন। বিভিন্ন সেক্টরে পঞ্চম গ্রেডের কর্মকর্তার সংখ্যা তিন সহস্রাধিক। ২০১২ সাল থেকে সরকার গাড়ি সুবিধা গ্রহণের পরিবর্তে বিশেষ সুদমুক্ত অগ্রিমের মাধ্যমে গাড়ি কেনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য গাড়িসেবা নগদায়ন নীতিমালা করে। এর আওতায় যুগ্ম সচিব, অতিরিক্ত সচিব ও সচিবদের ব্যক্তিগত গাড়ি কেনার জন্য ঋণ ও রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় দেওয়া হচ্ছে। তাঁদের সঙ্গে বিসিএস ইকোনমিক ক্যাডারের কর্মকর্তা, যাঁরা যুগ্ম প্রধান এবং লেজিসলেটিভ ও সংসদবিষয়ক বিভাগের যুগ্ম সচিব (ড্রাফটিং) তাঁদের এ সুবিধা দেওয়া হয়। কিন্তু অবশিষ্ট ২৭টি ক্যাডার এর বাইরে রয়ে গেছে। এ নিয়ে কৃষি, শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্যাডারে মারাত্মক ক্ষোভ রয়েছে।

উপসচিবরা দীর্ঘদিন থেকেই সরকারের কাছে সার্বক্ষণিক গাড়ি সুবিধা প্রাধিকারের দাবি জানিয়ে আসছেন। তাঁদের যুক্তি হচ্ছে, দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা কেন পিছিয়ে থাকব। এ ছাড়া জেলা পর্যায়ে কর্মরত থাকার সময় তাঁদের ভালো মানের গাড়ি দেওয়া হয়। জেলা থেকে সচিবালয়ে পোস্টিং হলে সে সুবিধা আর থাকে না।

উপসচিবরা সরকারের পঞ্চম গ্রেডের কর্মকর্তা। কোনো কোনো দপ্তরের পঞ্চম গ্রেডের কর্মকর্তারা গাড়ি সুবিধা পান। কিন্তু তাঁদের তা দেওয়া হয় পরিদর্শনকাজের জন্য। রোডস অ্যান্ড হাইওয়ে, পুলিশ, খাদ্য অধিদপ্তরের পঞ্চম গ্রেডের কর্মকর্তারা সে সুবিধা পান। সচিবালয়, বিভিন্ন অধিদপ্তর বা বিভিন্ন বিভাগীয় শহরের প্রাধিকারপ্রাপ্ত কক্ষে বসে যাঁরা কাজ করেন, তাঁদের সার্বক্ষণিক গাড়িসেবা দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তারা।

আগামী বছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে। এর পরই রয়েছে জনপ্রশাসন। জনপ্রশাসনে বরাদ্দ মোট বাজেটের ১৩.৬ শতাংশ। টাকার অঙ্কে তা ৫৪ হাজার ৫৩৬ কোটি টাকা। জনপ্রশাসনের এই ব্যয় প্রতিবছরই বাড়ছে। গত বছর সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দ্বিগুণ করা হয়েছে। দেওয়া হয়েছে বৈশাখী ভাতা। বেতন ও ভাতা বাড়ানোর বছর না ঘুরতেই মূল্যস্ফীতির সঙ্গে তাঁদের বেতন সমন্বয় করার জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিবকে (সংস্কার ও সমন্বয়) প্রধান করে একটি উচ্চপর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই অবস্থায় উপসচিবদের সার্বক্ষণিক গাড়ি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, বেতন, ভাতা, নতুন বোনাসসহ নানা সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো হলেও সরকারি অফিসে কাজের মান বাড়েনি, কমেনি ঘুষ, দুর্নীতি।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...







Editor: AHM Anwarul Karim

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
43/B/1, East Hazipara, Rampura
Dhaka-1219, Bangladesh.