বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮
বিশেষ নিউজ

দুই কোটি টাকা মেরে ব্যাংক কর্মকতা ‘লুকিয়ে’ ছিলেন


NEWSWORLDBD.COM - January 1, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকায় পরিবারের কাছে ‘নিখোঁজ’ থাকা ব্যাংক কর্মকর্তা নাইমুল ইসলাম সৈকতের সন্ধান মিলেছে চট্টগ্রামে। তিনি নিজেই লুকিয়ে ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বেসরকারি ব্যাংকটির শ্যামলী শাখার সিনিয়র অফিসার সৈকতকে দুই দিন ধরে পাওয়া যাচ্ছে না জানিয়ে গত বুধবার তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় জিডি করেছিল তার পরিবার।

এরপর খোঁজ লাগিয়ে ৩১ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকায় সৈকতের সন্ধান পাওয়া যায় বলে ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার জানিয়েছেন।

তিনি সোমবার বলেন, “আত্মগোপনে থাকার কথা স্বীকার করে সৈকত আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। সৈকত লভ্যাংশ দিবে বলে প্রায় পৌনে দুই কোটি টাকা বিভিন্নজনের কাছ থেকে গ্রহণ করে। এই টাকা সৈকত তার এক বন্ধুকে দেয়। কিন্তু তার বন্ধু টাকা ফেরত বা লভ্যাংশ না দেওয়ায় বেশ কিছুদিন ধরে হতাশায় ভুগছিল।”

জিডিতে বলা হয়েছে, শ্যামলী থেকে এক বন্ধুর সঙ্গে শিল্পাঞ্চল এলাকায় এসেছিলেন সৈকত। সেখানে কাজ শেষ করে গুলশান তেজগাঁও লিংক রোডে ব্র্যাক ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে যাওয়ার কথা বলে বন্ধুর কাছ থেকে বিদায় নেন। কিন্তু সেখানে তিনি যাননি।

শিল্পাঞ্চল থানার ওসি আব্দুর রশীদ বলেন, “গত ২৬ ডিসেম্বর সে ওই টাকা আনতে নিকেতন এলাকায় তার ওই বন্ধুর কাছে গিয়েছিল। টাকা না পেয়ে সে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ে এবং পরে সে একটি বাসে উঠে চট্টগ্রাম চলে যায়। সেখানে সে এক বন্ধুর কাছে আড়াই হাজার টাকা ঋণ করে হাটহাজারী যায়।”

হাটহাজারীতে মোবাইল ব্যবহারের সময় পুলিশের নজরদারিতে ধরা পড়েন সৈকত। ওসি বলেন, “এরপর নির্দিষ্ট ব্যক্তির মাধ্যমে তার অবস্থান নিশ্চিত হলে ঢাকা থেকে একটি দল হাটহাজারীতে যায় এবং গতকাল (রোববার) বিকালে তাকে নিয়ে ঢাকায় পৌঁছে।”

“সে পুরো ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জবানবন্দি দেয়। পরে আদালতের নির্দেশে নিজ জিম্মায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়,” বলেন ওসি।

সৈকতের বাড়ি বরিশালে। ঢাকায় মিরপুর ২ নম্বর এলাকায় পরিবার নিয়ে থাকতেন তিনি।

সোমবার সৈকতকে আদালতে পাঠায় পুলিশ।

যে কোনো সংবাদ জানতে আমাদের ফেসবুক পেজ 'লাইক' করতে পারেন (এই লাইনের নিচে দেখুন)...






-

Editor & Publisher: M. Arman Hossain

NEWSWORLDBD.COM
email: [email protected]
Phone: +8801787506342

©Titir Media Ltd.
News & Editorial: 39 Mymensingh Lane, Banglamotor
Dhaka-1205, Bangladesh.